Sunday, February 25, 2024
No menu items!
Google search engine
Homeজাতীয়যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞায় আমাদের আশঙ্কার কোনো কারণ নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞায় আমাদের আশঙ্কার কোনো কারণ নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বিশেষ সংবাদদাতা :

যুক্তরাষ্ট্র হাজার হাজার নিষেধাজ্ঞা দেয়। তাদের নিষেধাজ্ঞায় আমাদের আশঙ্কার কোনো কারণ নেই বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা একদিকে আসে, আরেকদিকে যায়।’ আজ মঙ্গলবার রাজধানীর বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্রাটেজিক স্টাডিজে (বিআইআইএসএস) এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন। এদিন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকরা জানতে চান মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে শাহীনবাগে ঘটে যাওয়া ঘটনা কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা বা দুই দেশের সম্পর্কে কোনো অবনতি হচ্ছে কি না? এ সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের আশঙ্কার কোনো কারণ নেই। যুক্তরাষ্ট্র হাজার হাজার নিষেধাজ্ঞা দেয়।’পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় আসার আগে যুক্তরাষ্ট্রের দেওয়া নিষেধাজ্ঞার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘আপনাদের মনে আছে, মোদির ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল।’যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক ‘ভালো’ জানিয়ে মোমেন বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক ভালো। বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের যোগাযোগ রয়েছে। এ বছরে আমরা প্রায় ১৬টা মিটিং করেছি। এদিক থেকে আটটা, তাদের দিক থেকে আটটা। আমাদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো বলেই তারা আমাদের বিভিন্ন সাজেশান দেয়।’ বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রসঙ্গে মোমেন বলেন, ‘সেটা ওদের দায়দায়িত্ব এড়ানোর জন্য। কারণ তাদের লোক যদি আসে কেউ যদি আহত হয়, সেটার দায় তারা (দূতাবাস) নিতে চায় না।’ উল্লেখ্য, গত ১৪ ডিসেম্বর সকালে মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস নিখোঁজ বিএনপি নেতা সাজেদুল ইসলাম সুমনের বাসায় যান। সকাল ৯টা ০৫ মিনিটে সুমনের বাসায় প্রবেশ করেন তিনি। প্রায় ২৫ মিনিট তিনি সেখানে অবস্থান করেন। এরপর তিনি ওই বাসা থেকে বেরিয়ে যান। এ সময় প্রায় ৪৫ বছর আগের গুমের ঘটনা ও সামরিক শাসনামলে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে রাষ্ট্রদূতের কাছে স্মারকলিপি দেয় ‘মায়ের কান্না’ নামে একটি সংগঠন। সেখানে তাকে ঘিরে ধরার চেষ্টা করা হয়। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওইদিন দুপুরে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে জরুরি ভিত্তিতে বৈঠক করেন পিটার হাস। বৈঠকে রাষ্ট্রদূত তার ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস হওয়ার কথা উল্লেখ করে নিজের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments